পারকিনসন্স একটি পুরনো স্নায়ু রোগ। ১৮১৭ সালে জেমস পারকিনসন এ রোগের বিষয়ে বর্ণনা দেন। ব্রিটেনের প্রতি ৫০০ জনে একজন এ রোগে আক্রান্ত হয়।

কারণ

এ রোগের কারণ কী তা আজো জানা যায়নি। মস্তিষ্কের সাবসটেনশিয়া নিগ্রা নামক স্থানে ডোপামিনযুক্ত স্নায়ু ধ্বংসপ্রাপ্ত হলে এ রোগ দেখা দেয়। তবে মনে করা হয় জেনেটিক মিউটেশন বা রূপান্তরের পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের টক্সিন ও ভাইরাসের সংক্রমণে এ রোগের লক্ষণ দেখা যায়। সাধারণত বেশি বয়সীরা এ রোগে আক্রান্ত হন। বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে এ রোগে আক্রান্তের আশঙ্কা বাড়ে। বংশে কারো এ রোগ থাকলে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা চার-ছয় গুণ বেড়ে যায়। এ ছাড়া যারা আগাছা ও পোকামাকড় দমনের ওষুধ ছিটানোর কাজে জড়িত তাদের মধ্যে এ রোগের হার বেশি বলে গবেষণায় জানা গেছে।

লক্ষণ

এ রোগের লক্ষণ প্রকাশ পায় অনেক পরে। শুরুতে লক্ষণ এতটা বোঝা যায় না। সাধারণত হাতের কাঁপুনির মাধ্যমে এ রোগ লক্ষণ প্রকাশ করে থাকে। ধীরে ধীরে তা বাড়তে থাকে। কোনো কাজের সময় কাঁপুনি বেশি হয়। তবে বিশ্রাম নেওয়ার সময়ও কাঁপুনি দেখা যায়, এটি এ রোগের অন্যতম লক্ষণ। এ সময় হাঁটাচলা করতেও সমস্যা হয়। হাঁটা শুরু করতে দেরি হয়। সামনের দিকে ঝুঁকে ছোট ছোট পায়ে হাটতে থাকে। হঠাৎ করে ঘুরতে গেলে পড়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে। কোনো কাজ শুরু করতে দেরি হয়। মাংসপেশি শক্ত হয়ে যায়, যেমন বাহু বাঁকাতে গেলে বেশ বেগ পেতে হয়। এ রোগে আক্রান্তদের চেহারা দেখে মনে হবে তাদের কোনো আবেগ নেই। গলার স্বর ভারী হয়। কথায় জড়তা ভর করে। হাঁটার সময় হাত শরীরের সাথে লেগে থাকে। বিষণ্ণতায় বেশি ভোগে।

রোগ নির্ণয়

এ রোগ নির্ণয় করা যায় এমন কোনো পরীক্ষা নেই। চিকিৎসকরা রোগের ইতিহাস শুনে এবং শারীরিক পরীক্ষা করে এ রোগ সম্বন্ধে নিশ্চিত হন।

চিকিৎসা

এ রোগের কোনো প্রতিষেধক নেই। রোগের লক্ষণ কমানোর জন্য কিছু ওষুধ সেবন করতে হয়। লেভোডোপা ও কার্বিডোপা এ ধরনের ওষুধগুলো চিকিৎসকরা সেবন করার পরামর্শ দেন। এ ছাড়া ব্রোমোক্রিপটিন, সেলেজিলিন, এমানটিডিন, এন্টিকলিনার্জিক ওষুধ ব্যবহার করা হয়। এ ছাড়া সার্জারি করা যায়। তবে আমাদের দেশে তা হয় না বললেই চলে।

এ রোগ পুরোপুরি ভালো হয় না। তাই এ রোগে আক্রান্তদের ওষুধ সেবনের পাশাপাশি জীবনযাপনের ধরন পরিবর্তন করা জরুরি। এ রোগে আক্রান্তদের পুষ্টিকর সুষম খাবার খেতে হবে। প্রতিদিনের খাবারে শাকসবজি, ফলমূল থাকতে হবে। আক্রান্তদের কোষ্ঠকাঠিন্য দেখা যায়। এ জন্য ফাইবার সমৃদ্ধ খাবার বেশি করে খাওয়ার পাশপাশি প্রচুর পরিমাণে পানি পান করতে হবে। আক্রান্তরা হাঁটতে গিয়ে হোঁচট খেয়ে পড়ে গিয়ে আহত হন। আবার বয়স বেশি বলে পড়া থেকে ভেঙে যায় হাড়। এটি প্রতিরোধ করতে হলে সচেতন হতে হবে। হাঁটার সময় তাড়াহুড়া করবেন না। কেউ ডাকলে হঠাৎ করে না ঘুরে, আস্তে আস্তে ইউ-টার্ন নিন। হাঁটার সময় কোনো কিছু বহন করবেন না। এমন পোশাক পরুন যেটিতে বোতাম কম বা চেইন আছে।

এ রোগ কীভাবে প্রতিরোধ করা যায় তা নিয়ে অনেক গবেষণা হলেও ভালো ফলাফল পাওয়া যায়নি। তবে গবেষকরা বলেছেন কফি জাতীয় তরল পানে এর ঝুঁকি কমে।

ডা. হুমায়ুন কবীর হিমু, মেডিকেল অফিসার, সিভিল সার্জন অফিস, গোপালগঞ্জ

সঠিক সময়ে সঠিক চিকিৎসা পাওয়ার অধিকার আছে সকলের। তবে ডাক্তার পেতে দীর্ঘ অপেক্ষা কিংবা নার্স, ফিজিওথেরাপিস্ট, কেয়ারগিভার, ল্যাব টেস্টের সঠিক তথ্য খুঁজে পাওয়ার বিড়ম্বনার কারনে সঠিক সময়ে চিকিৎসা পাওয়ার ব্যাঘাত ঘটে অনেক সময়।

আমাদের জীবনে কর্ম ব্যস্ততা দিন দিন বাড়ছে, একই সাথে পরিবারের অসুস্থ্য, নবজাতক, বৃদ্ধ প্রিয়জনের চিকিৎসা ও পরিচর্যার দায়ভার। সন্তান হয়ে- বাবা-মা প্রিয়জনে পাশে থাকা ও যত্ন নেয়া আমাদের দায়িত্ব। যথাযথ সেবা করে তাদের মুখে হাসি ফোঁটাতে পারাটাই আমাদের প্রাপ্তি ও তৃপ্তি। কিন্তু সময়ের বাস্তবতায়, অনেক সময়ই তা সম্ভব হয়ে উঠে না।

এছাড়াও সেবা পরিচর্যার ক্ষেত্রে নিজেদের দক্ষতা না থাকায় বিভিন্ন সমস্যা পোয়াতে হয়ে, নবজাতক বৃদ্ধ প্রিয়জন দীর্ঘ দিন অসুস্থ অবস্থায় কষ্ট পেতে থাকে, একজন দক্ষ প্রশিক্ষিত ব্যক্তি পারে আপনার অসুস্থ্য বৃদ্ধ প্রিয়জনের পরিচর্যা করে সুস্থ করে তুলতে একই সাথে বৃদ্ধ প্রিয়জনের কষ্টের দিন গুলো হতে পারে একটু আরামদায়ক।

আপনার প্রিয়জনের প্রয়োজনে, আন্তরিক সেবা নিয়ে আপনার পাশে থাকছে আমাদের প্রশিক্ষিত ও সুদক্ষ কর্মী। বৃদ্ধ প্রিয়জনের পরিচর্যার প্রয়োজনে বাড়িতে ১২/২৪ ঘন্টা বছরে ৩৬৫ দিন দীর্ঘমেয়াদী সেবায় রয়েছে ডাক্তার, নার্সিং, ফিজিওথেরাপিস্ট, মেডিকেল পেশেন্ট এটেনডেন্ট, কেয়ারগিভার, বেবিসিটার সেবা এবং মেডিকেল ইকুইপমেন্ট ক্রয় বিক্রয় ও ভাড়া সহ নিজ বাসায় সেটাপ করিয়ে দেওয়া। +৮৮০১৯৪৪-৩৩৩৫৫৫ / +৮৮০১৯৯৭৭০০৭৬৩ / https://priyojon.app

Leave a comment